কৃষির আওতায় থাকলেও পর্যাপ্ত সুবিধা পায় না পোল্ট্রি শিল্প

Comments are closed

বিপুল জনগোষ্ঠির এই দেশে, কম খরচে অধিক পুষ্টির যোগানের বড় ভূমিকা পোল্ট্রি খাতের। সেই সঙ্গে, বিপুল সংখ্যক মানুষের কর্মসংস্থান ও নারীদের কাজের সুযোগ সৃষ্টিতেও এই খাতের অবদান অনেক। তবে, যথাযথ পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে, সম্ভাবনাময় এই খাতটিতে দেখা দিয়েছে নানান সমস্যা। সবশেষ, চলতি অর্থ-বছর থেকে এই খাতে কর আরোপের কারণেও লোকসানের শিকার হচ্ছেন ব্যবসায়ীরা। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রণোদনা পেলে, দেশের চাহিদা মিটিয়ে রপ্তানি করেও বিপুল পরিমান বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করবে সরকার।

রাজধানীর শান্তিনগর বাজারের পোল্টি ব্যবসায়ী মোরশেদ আলম হৃদয়। মামার দোকানে কাজের মাধ্যমে ব্যবসায় হাতে খড়ি। সেই হৃদয় বর্তমানে পরিপূর্ণ ব্যবসায়ী।

৯০ এর দশকে দেশে বাণিজ্যিকভাবে যাত্রা শুরু পোল্ট্রি শিল্পের। বর্তমানে প্রায় ৬০ লাখ মানুষের জীবন-জীবিকা আসে এই খাত থেকে।

মাংস আর ডিম উৎপাদনের পাশাপাশি পোল্ট্রি শিল্পকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে ছোট ছোট কিছু শিল্প। বাংলাদেশ পোল্ট্রি শিল্প সমন্বয় কমিটির আহ্বায়ক মসিউর রহমান জানান,মুরগির বিষ্ঠা দিয়ে বর্তমানে উৎপাদন করা যাচ্ছে বিদ্যুত। সবমিলিয়ে যা গতিশীল করছে দেশের অর্থনীতির চাকা।

তবে, সম্ভাবনাময় খাতটিতে সম্প্রতি দেখা দিয়েছে বেশ কিছু সমস্যা। এই শিল্পকে কৃষি খাতের আওতায় ধরা হলেও সে হিসেবে সুবিধা পান না সংশ্লিষ্টরা। এমনকি শুরু থেকে কর মুক্ত থাকলেও গেল অর্থবছরে এই খাতে সবোর্চ্চ ১৫ শতাংশ করারোপ করা হয়। আর, খাবার আমদানিতে আরোপ করা হয় ৩৫ শতাংশ কর। ফলে, কমেছে বিনিয়োগ।

কর আরোপের এই বিষয়টির সমালোচনা করেছেন, বেসরকারি গবেষণা সংস্থা-সিপিডির গবেষক গোলাম মোয়াজ্জেম হোসেন। বলেন, সমন্বিত কৃষি সম্প্রাসারণ ও ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা সৃষ্টির ক্ষেত্রে বড় অবদান রাখা এই খাতে, কর আরোপের বদলে সরকারের প্রণোদনা দেয়া বেশি প্রয়োজন।

সিপিডির গবেষণা বলছে, মোট দেশজ উৎপাদন-জিডিপির প্রায় এক শতাংশ আশে পোল্ট্রি শিল্প থেকে। আর,জাতীয় অর্থনীতিতে এই শিল্পের অবদান প্রায় ২ দশমিক ৪ শতাংশ।

Comments are closed.

Web Design BangladeshWeb Design BangladeshMymensingh