জমকালো অনুষ্ঠানে পর্দা উঠলো রিও অলিম্পিকের

Comments are closed

ব্রাজিলের রিও ডিজেনিরোতো এক জমকালো অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে পর্দা উঠলো অলিম্পিকের ৩১ তম আসরের। মুহুর্মুহু আতশবাজির ঝলকানি আর মনোমুগ্ধকর ডিসপ্লেতে ইতিহাস ও ঐতিহ্যকে তুলে ধরলেন ব্রাজিলিয়ানরা। গ্রেটেস্ট শো অন দ্য আর্থ খ্যাত এ আসরে বিশ্বের ২০৬ টি দেশের ১১ হাজার ২৯৩ জন প্রতিযোগী অংশ নিচ্ছেন। আর এবারের আসরে লাল-সবুজের প্রতিনিধিত্ব করছেন ৭ জন অ্যাথলিট। তাই তাদের জন্য দেশের ক্রীড়া প্রেমিদের প্রত্যাশাও বেশ তুঙ্গে।

বাংলাদেশ সময় ভোর পাঁচটায় ব্রাজিলের বিখ্যাত মারকানা স্টেডিয়ামে শুরু হয় বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্রীড়া আসর অলিম্পিকের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। যেখানে উপস্থিত হন ৬০ হাজার দর্শক। জমজমাট ও চোখ ধাঁধানো অনুষ্ঠানটি ঘরে বসে টেলিভিশনের পর্দায় উপভোগ করলেন পুরো বিশ্বের ৩ বিলিয়ন দর্শক।

আসরের রীতি অনুযায়ী প্রতিটি দেশের প্রতিযোগিরা তাদের নিজ দেশের পতাকাকে পরিচয় করালেন মাঠ প্রদক্ষিন করে। পতাকা হাতে উপস্থিত ছিলেন মাইকেল ফেলেপস,উসাইন বোল্ট ও রাফায়েল নাদালরাও। আর বাংলাদেশের হয়ে অলিম্পিক মঞ্চে লাল-সবুজ পতাকাটি বহন করলেন গলফার সিদ্দিকুর রহমান,সঙ্গে হাঁটলেন দেশের আরও ৬ প্রতিযোগী।

শুক্রবার রাতে রিও ডিজেনিরোর মারকানাকে সাজানো হয়েছিল ভিন্ন আঙ্গিকে। চোখ জুড়ানো আলোর ঝলকানি আকাশজুড়ে,পুরো ব্রাজিল যেন পরিনত হয়েছিল আনন্দের ঘনঘটায়। যেখানে ব্রাজিলিয়ানরা মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে তুলো ধরলেন ঐতিহ্যবাহী সাম্বার নৃত্য, আভিজাত্য ও ইতিহাসকে। আর আসরের মূল মশালটি কিংবদন্তী ফুটবলার পেলে  প্রজ্জ্বলন করার কথা থাকলেও শেষ পর্যন্ত তা  অ্যাথলেট ভান্দারলেই দে লিমার হাতেই ওঠে ।

এ প্রতিযোগিতায় লাল-সবুজের জার্সি গায়ে মাঠ মাতাবেন বাংলাদেশের দুজন সাতারু,দুজন অ্যাথলেট,একজন শ্যুটার,একজন আর্চার এবং একজন গলফার।সবার জন্যই শুভ কামনা জানালেন ক্রীড়া প্রেমিরা।

তবে আসরের প্রথম দিনেই আর্চারিতে রিকার্ভ বো ইভেন্টের কোয়ালিফায়ারে ৬৪ জনের মধ্যে ৫৩ তম হলেন তীরন্দাজ শ্যামলী রায়। চারবার নিশানা ভেদ করে স্কোর গড়েন ৬শ।

অলিম্পিকের ৩১ আসরের সবচেয়ে লক্ষ্যনীয় যে বিষয়টি ছিল তা হল প্রথমবারের মতো প্যারেডে অংশ গ্রহন করে শরণার্থীদের একটি দল। যা সত্যিই রিও অলিম্পিকের ইতিহাসের পাতায় স্বর্নাক্ষরে লেখা থাকবে। ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট মিচেল তেমারের উদ্বোধনী ঘোষণার মধ্য দিয়েই পর্দা উঠলো এবারের রিও অলিম্পিকের।

এদিকে, আনুষ্ঠানিকভাবে রিও দে জেনেইরো অলিম্পিকের পর্দা ওঠার আগেই বিশ্বরেকর্ড গড়েছেন দক্ষিণ কোরিয়ার তিরন্দাজ কিম উজিন। ব্রাজিলের রিও দে জেনেইরোর সামব্রোদোমোয় ছেলেদের ব্যক্তিগত ইভেন্টের র‍্যাঙ্কিং রাউন্ডে ৭২০-এর মধ্যে ৭০০ স্কোর করে বিশ্বরেকর্ড গড়েন কিম।

Comments are closed.

Web Design BangladeshWeb Design BangladeshMymensingh